১০০০ পিচ ইয়াবাসহ আনোয়ারা পুলিশের তৎপরতায় টেকনাফের সফিকা খাতুন আটক

104
madok-pachar

আনোয়ারা উপজেলায় পুলিশি তৎপরতায় মাদক পাচার কিছুটা কমলেও বন্ধ করা যাচ্ছে না মাদক বিশেষ করে ইয়াবা পাচার। দিনের পর দিন এ্ পেশায় জড়িয়ে পড়ছেন অনেকেই। ইয়াবা পাচারে নারী ও শিশু ব্যবহারের অভিযোগ অনেক দিনের। অভিযুক্ত ও ধৃত অনেকের সাথে কথা বললেই জানা যায় নিতান্তই বাধ্য হয়েই এরা মাদক পাচারকারী দলে নাম লেখায়।সংসার নামক চাঁদের গাড়ী চালাতে গিয়ে মাদক পাচারকারী দলের টার্গেটে পড়েন এসব ড্রাইভার! কিন্তু না, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরাও বসে নেই। সামাজিক শুদ্ধি অভিযানের দায়-দায়িত্ব পুশিল বাহিনীর হাতে না থাকলেও মাদকের ব্যবহার ও পাাচার রোধে পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা বরাবরই তৎপর।এবার আনোয়ারা পুলিশের তৎপরতায় আটক হলো একজন নারী ইয়াবা পাচারকারী।

আনোয়ারা উপজেলার কালাবিবির দিঘির মোড় এলাকা হতে ১০০০ পিচ ইয়াবাসহ একজন নারী মাদক পাচারকারী টেকনাফের সফিকা খাতুনকে(৪৫) আটক করেছে আনোয়ারা থানা পুলিশ।

রবিবার (১১ই ফেব্রুয়ারি-২০১৮)দুপুর আনুমানিক ১ টা ৪৫ মিঃ এ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এস আই মোঃ রেজাউল করিম ও তার সহকর্মীরা কালাবিবির দিঘির মোড়ে সফিকা খাতুনকে তল্লাশি করলে তার শরীরে মোড়ানো অবস্থায় ১০০০ পিচ ইয়াবা উদ্দার করা হয়। উদ্ধারকৃত ইয়াবার বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ৫ লক্ষ টাকা।

আটককৃত মহিলা হলেন সফিকা খাতুন,স্বামী-এখলাছ মিয়া,মাতা-সলেহা বানু, সাং-ছোট হারির পারা,ওয়ার্ড-০৭, থানা-টেকনাফ,জেলা-কক্সবাজার বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে। এ রিপোর্ট লেখার সময় সর্বশেষ খবরে জানা যায় আটককৃত সফিকা খাতুনের বিরুদ্ধে মাদক পাচার ও চোরাচালান আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

রানা সাত্তার

বিশেষ প্রতিবেদক

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন