২৫ মার্চের কালোরাত স্মরনে ব্লাকআউট কর্মসূচী পালন করলো বাঙ্গালী জাতি

42
black-out-program

“সারাদেশে একাত্তরের চেতনার উত্তাল ঢেউ জেগেছে। জেগে উঠেছে আমাদের নতুন প্রজন্ম। তাকে স্বাগত জানাই। দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ নতুন প্রজন্ম জাতিকে আশাবাদী করেছে। যে কোনো মূল্যে এ ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।” ২৫ মার্চের কালোরাত স্মরনে ব্লাকআউট কর্মসুচী পালন করলো বাংলাদেশ।

অন্যরকম একটি প্রতিবাদ দেখাল বাংলাদেশ। ১ মিনিট নীরবতার মাধ্যমে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি ও জামায়েত শিবিরকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানালেন অগণিত মানুষ।২৫ মার্চের কালো রাত স্মরণে রাত ৯টা থেকে সারাদেশে ১ মিনিটের ব্ল্যাকআউট কর্মসূচি পালন করলো রাজধানী ঢাকাসহ দেশের অগনিত শান্তিকামী বাঙ্গালী।

এই আন্দোলনে রবিবার (২৫ মার্চ) রাত নয়টায় নিভে যায় সব ঘরের আলো। স্মরণ করা হয় ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালো রাতের শহীদদের। রাত ৯টা থেকে ৯টা ১মিনিট পর্যন্ত এক মিনিটের জন্য ঘরের আলো নিভিয়ে ২৫ মার্চের কালো রাতকে স্মরণ করার ঘোষণা দিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। তবে ওই সময় বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করা হয়নি। এছাড়া জরুরি সেবা প্রতিষ্ঠান ও কেপিআই এলাকা এই কর্মসুচীর বাইরে ছিল।

এর আগে কালো রাতে নিহতদের স্মরণে সারাদেশে এক মিনিট সব ধরনের আলো বন্ধ রাখার কর্মসূচি নিয়েছিল সরকার। গত ১১ মার্চ সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

এদিকে গণহত্যা দিবসে এক মিনিট বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রাখাসহ সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগে চিঠি পাঠিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

চিঠিতে জানানো হয়েছিল, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জননিরাপত্তা বিভাগ, বিদ্যুৎ বিভাগ, তথ্য মন্ত্রণালয়, গণযোগাযোগ অধিদপ্তর এবং সব জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের (ইউএনও) মাধ্যমে গণহত্যা দিবসে এক মিনিট ব্ল্যাক আউট কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে হবে।

জাতীয় সংসদের স্বীকৃতির পর একাত্তরের ২৫ মার্চ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বর্বর হত্যাযজ্ঞের দিনটিকে গত বছর ‘গণহত্যা দিবস’ হিসেবে ঘোষণার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

বাঙালি জাতির মুক্তির আন্দোলনকে নস্যাৎ করতে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে এ দেশের নিরস্ত্র মানুষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। ‘অপারেশন সার্চলাইট’ নামে নিরস্ত্র বাঙ্গালী জাতির উপর ২৫ মার্চের কালো রাতে ঝাপিয়ে পড়ে পাকিস্তানের হানাদার বাহিনী। চালানো হয় ইতিহাসের বর্বরোচিত জঘন্যতম পৈশাচিক হত্যাকান্ড, যা ইতিহাসের ভয়াবহতম গণহত্যা হিসেবে স্বীকৃত।

মো: হামিদুর রহমান


সম্পাদক, ফোকাস বাংলা।নিউজ।টিভি

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন