হাবিবা সুলতানা খুশি- হঠাৎ তোমার আগমনে

227

বাংলাদেশের শিল্প-সাহিত্যের ইতিহাসে যে জেলার নামটি সবচেয়ে বেশী উচ্চারিত হয় তার নাম ময়মনসিংহ। এই ময়মনসিংহ জন্ম দিয়েছে অনেক খ্যাত-অখ্যাত, গুণী কবি সাহিত্যিকের। কবি হাবিবা সুলতানা খুশি তাদেরই একজন। কবিতা লিখেন কিন্তু নিজেকে রাখতে চান অন্তরালে কিন্তু কেন? ভাল লিখেন না বলে! সত্যিই কি ভাল লিখেন না হাবিবা সুলতানা খুশি? তার বিচারের ভার রইলো সাহিত্যবোদ্ধা পাঠককূলের বরাবরে। কবির কাজ লিখে যাওয়া আর আমাদের কাজ তা প্রকাশ করা- ফোকাস বাংলা নিউজ।

হঠাৎ তোমার আগমনে

– হাবিবা সুলতানা খুশি
হঠাৎ তুমি এলে বলে
অন্তরের ব্যথা গিয়েছে কমে,
চারপাশ রৌদ্রজ্জ্বল হয়েছে
তোমার শীতল স্পর্শের ওমে।

মৃদু বাতাস ছুঁয়ে গেছে কাশবন
যখনি ঘটল তোমার আগমন।

ওগো প্রেয়সী তোমার চোখে মুখে
আমার স্পর্শ খেলা করে,
তোমার অগোছালো চুলে
আমার হৃদয়ের মেঘমালা যায় উড়ে।

হঠাৎ তোমার আগমনে
জাগে হৃদয়ে তীব্র প্রেমের সাধ,
তোমারি প্রেমে দিনকে করেছি রাত,
আমি নিজেকে করেছি আজাদ।

শুধু তোমার আগমনে
তুলে এনেছি ১০১ টি নীল পদ্ম,
ওগো প্রেয়সী, তোমাকে পেয়ে
লিখেছি আমি কত শত গদ্য।

পেয়েছি ফিরে হারানো সেই বসন্ত
মহাগিরি, সাগর জয় করেছি
তবুও হয়নি ক্ষান্ত।

তোমাকে দেখে
নিভে গিয়েছে রাতের সব জোনাকি
তোমার দুচোখে আজ শুধুই
ভালোবাসার স্বপ্ন আঁকি।

তোমার চাহনিতে
এলোমেলো হয়ে যায় সব কথা,
তোমার আগমনে কমে গিয়েছে
আজ হৃদয়ের সব ব্যথা।

তোমাকে দেখতে শত বাধা ফেলে
তোমার কাছেই ছুটে আসি,
বিশ্বাস করো প্রিয়া
আমি তোমাকেই ভালোবাসি।

ফোবানি/আহমেদ মাসুদ বিপ্লব

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন