শোয়েব ফারুকী যখন বিশ্বের ক্যানভাসে বাংলাদেশের ছবি আঁকেন

242
shoeb_faruki

“জীবে দয়া করে যে জন সে জন সেবিছে ঈশ্বর’’ কথাটি বাবার হাত ধরে হাটতে হাটতে সেই ছেলেবেলায় পড়েছি শতবার। কিন্তু ঈশ্বর/স্রষ্টা/ভগবানের জন্য খাবার বা ইংরেজীতে ‘ফুড ফর গড’ শব্দটা আপনাকে ভাবাবে আমি নিশ্চিত। ফটোগ্রাফিতে মননশীল ভাবনার জগতে প্রবেশ করে শোয়েব ফারুকী ‘ফুড ফর গড’ ছবি দিয়ে বাংলাদেশের জন্য বয়ে এনেছেন সম্মান। একবার ভাবুনতো একজন ব্রাহ্মণ পাঁচক একান্ত মনোযোগ সহকারে বিশাল আকৃতির একটি হাড়িতে খাবার রান্না করছেন। পাশের ঘরে বসে সারি সারি নারী-পুরুষ,মোমবাতির আলোয় প্রার্থনায় মগ্ন- এমনই একটি দৃশ্য ক্যামেরায় ধারন করেছেন শোয়েব ফারুকী। সেই ছবিই ‘ফুড ফর গড’ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাঘাবাঘা ফটোগ্রাফারের ছবি টপকিয়ে জিতে নিলো বিশ্বের মর্যাদাপূর্ণ আলোকচিত্রের বর্ষসেরা পুরস্কার।

যুক্তরাজ্যের বাজারে ‘পিংক লেডি’ নামে বেশ সুস্বাদু আপেল পাওয়া যায়। এই পিংক লেডিই ছয় বছর ধরে খাদ্য আলোকচিত্র প্রতিযোগিতার আয়োজন করছে। ‘পিংক লেডি ফুড ফটোগ্রাফি কম্পিটিশন-২০১৭’-এর জন্য এ বছর বিশ্বের ৬০টির বেশি দেশ থেকে ৮ হাজার ৪০০ ছবি জমা পড়ে। ২৬টি বিভাগ রয়েছে এই প্রতিযোগিতায়। এগুলোর মধ্যে ‘উৎসবের জন্য খাবার’ (ফুড ফর সেলিব্রেশন) বিভাগে সেরা ছবির পুরস্কার জেতে ফুড ফর গড ছবিটি। আর এই ছবিটিই সব বিভাগ মিলিয়ে এবারের বর্ষসেরা আলোকচিত্র হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে।

গত ২৫ এপ্রিল লন্ডনের দ্য মল গ্যালারিতে এক জমকালো অনুষ্ঠানে শোয়েব ফারুকীর হাতে পুরস্কার তুলে দেন জুরিবোর্ডের চেয়ারম্যান স্বনামধন্য সাংবাদিক ও খাদ্য সমালোচক জে রেইনার। পুরস্কার হিসেবে শোয়েব পান পাঁচ হাজার পাউন্ডের (পাঁচ লাখ টাকা) চেক। সেটি দেন পিংক লেডির প্রধান অ্যান্ডি ম্যাকডোনাল্ড। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের এই আলোকচিত্রী পাচ্ছেন ছবি বিক্রির জন্য আন্তর্জাতিকভাবে সুপরিচিত ওয়েবসাইট ‘জেনফোলিও’-র আজীবন সদস্যপদ। যেটির সদস্য ফি বার্ষিক ৩০ হাজার টাকা। মল গ্যালারিতে ২৫ থেকে ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত পুরস্কার পাওয়া ছবিগুলোর প্রদর্শনী চলছিল।

বায়োগ্রাফি : শোয়েব ফারুকী

শোয়েব ফারুকীর জন্ম ১৯৬০ সালে চট্টগ্রামের পটিয়ায়। পরিবার নিয়ে থাকেন চট্টগ্রাম শহরে। কাজ করেন ফ্রিল্যান্স আলোকচিত্রী হিসেবে। বাবা মিয়া ফারুকী ছিলেন একজন মুক্তিযোদ্ধা ও লেখক।

৩০ এপ্রিল পূর্ব লন্ডনে বিবিসি বাংলার সাংবাদিক মোয়াজ্জেম হোসেনের বাসায় দেখা হয় শোয়েব ফারুকীর সঙ্গে। আন্তর্জাতিক পুরস্কার জেতা তাঁর জন্য নতুন কিছু নয়। ২০০৫ সালে ‘ওয়ার্ল্ড প্রেস ফটোগ্রাফি’ প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় পুরস্কার জেতার মধ্য দিয়ে এর শুরু। ‘কুয়েত গ্র্যান্ড’, ‘এমিরেটস ফটো কনটেস্ট’সহ শতাধিক পুরস্কার রয়েছে তাঁর ঝুলিতে।

ফুড ফর গড সম্পর্কে শোয়েব ফারুকী

ফারুকী বললেন, ‘সনাতন ধর্মাবলম্বীদের একটি উপাসনাকেন্দ্র রাজাপুর লোকনাথ ধাম চিটাগাং। সন্ধ্যার দিকে সেখানে পূজাপর্ব শুরু হয়, চলে দুই ঘণ্টার মতো। পূজারিরা ২৪ ঘণ্টার মতো উপোস থাকেন এবং প্রার্থনা শেষে তাঁরা এখানেই খাবার খান। গত বছরের শেষের দিকে সেখানেই ছবিটি তুলি। প্রার্থনারতদের জন্য খাবার তৈরিতে রাঁধুনির নিমগ্নতা দেখেই ছবির নাম দিই ফুড ফর গড।’

ছবিটি বর্ষসেরা হওয়ার কারণও এটাই। অন্যান্য প্রতিযোগী যেখানে কেবল খাবারের ছবি তুলে পাঠিয়েছেন, সেখানে ফারুকীর ছবি খাবার নিয়ে এক অন্য রকম বার্তা দিচ্ছে। বিচারকদের একজন রয়্যাল ফটোগ্রাফিক সোসাইটির প্রধান নির্বাহী মিকাইল প্রিচার্ড বলেছেন, অনেকের কাছে খাবার কেবল ক্ষুধা নিবারণের বিষয় নয়, কখনো কখনো এটা বিশ্বাস ও আধ্যাত্মিকতার অংশ। সচরাচর দৃষ্টি এড়িয়ে যাওয়া খাবারের ওই বিশেষ দুটি দিক ফারুকীর ছবিতে উঠে আসার কারণেই এটি বর্ষসেরা বিবেচিত হয়েছে।

এ প্রতিযোগিতায় ‘ফুড ইন অ্যাকশন’ নামের অন্য একটি শ্রেণিতে ফারুকীর আরেকটি ছবি দ্বিতীয় পুরস্কার জেতে। সেটি চট্টগ্রামের মাঝিরঘাট এলাকার একটি লবণ শোধনাগারে তোলা।

ছবি তোলা শুরুর গল্প বলছেন শোয়েব ফারুকী

পারিবারিক ছবির অ্যালবাম দেখেই ছবি তোলার প্রতি আগ্রহ তৈরি হয় ফারুকীর। বয়স যখন ২০ বছর, তখন থেকেই অন্যের কাছ থেকে ধার করা ক্যামেরায় ছবি তোলা শুরু। তখন মানুষের ছবি তুলতেন। এরপর প্রকৃতির ছবি তোলা শুরু হলো ফারুকীর। বললেন, তখন ঘরে ঘরে ক্যামেরা ছিল না। একজন ছাত্রের পক্ষে তখন ক্যামেরা কেনাটাও সহজ ছিল না। তাই ধার করা ক্যামেরা দিয়েই চলতে থাকল। অবশ্য এ শখ মেটাতে তাঁকে একবার চড়া মূল্যও দিতে হয়েছে। বিদেশফেরত এক আত্মীয়ের কাছ থেকে ক্যামেরা এনেছিলেন ছবি তুলতে। সেই ক্যামেরা অল্প সময়ের মধ্যে ফেরত দেবে বলে নিয়ে যায় আরেক বন্ধু। কিন্তু ক্যামেরা আর ফেরত আসেনি। শেষ পর্যন্ত মায়ের সোনার চুড়ি বিক্রি করে সাড়ে চার হাজার টাকায় একই মডেলের একটি ক্যামেরা কিনে দিয়েছিলেন ফারুকী।

প্রথম ক্যামেরা হাতে শোয়েব ফারুকী

১৯৮২ সালে চট্টগ্রাম কলেজ থেকে স্নাতক সম্পন্ন করলেন। পরের বছর যোগ দিলেন একটি ওষুধ কোম্পানিতে। কিন্তু যাঁর মাথায় ছবি তোলার ভূত চেপেছে, তাঁকে দিয়ে কি আর চাকরি হয়? ক্যামেরা কেনার টাকা জমিয়ে চাকরিকে বিদায় দিলেন। আড়াই হাজার টাকায় কিনলেন প্র্যাকটিকা এসএলআর ক্যামেরা। শৌখিন ছবির পাশাপাশি শুরু হলো বিয়ের ছবি তুলে আয় করা।

শোয়েব ফারুকী চমকে যান ছবি বিক্রি হয়

১৯৮৯ সালে হুট করেই দুটি ক্যালেন্ডার প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ছবি চাইল। মিলল ভালো অর্থ। সাহসও বেশে বেড়ে গেল ফারুকীর। এরপর সোনালী ব্যাংকসহ অনেক প্রতিষ্ঠানের কাছে ছবি বিক্রির সুযোগ এল। সেই থেকে প্রতিবছর বাড়তে থাকল ছবি বিক্রি। আর বর্তমানে ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিক্রি করা যাচ্ছে ছবি। ফারুকী বলেন, এখন প্রতিবছর তিন শতাধিক ছবি বিক্রি হয়।

শোয়েব ফারুকী জিতে নেন পুরস্কার আর পুরস্কার

নিজের কাজের মান যাচাই করতে প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে থাকলেন শোয়েব ফারুকী। এক দশক ধরে তিনি প্রতিবছরই একাধিক আন্তর্জাতিক পুরস্কার জিতছেন। এসব পুরস্কার ছবি তোলার পেশাকে আরও শাণিত করে বলে মন্তব্য তাঁর।

শোয়েব ফারুকী চালান প্রশিক্ষন কেন্দ্র

ছবি তোলার জন্য ফারুকী প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ নেননি। তবে এখন চট্টগ্রাম শহরের সার্সন রোডের আলোকচিত্র প্রশিক্ষণকেন্দ্র ফটো আর্ট ইনস্টিটিউটের পরিচালক তিনি। প্রতিবছর ২৫০ থেকে ৩০০ শিক্ষার্থী এখান থেকে প্রশিক্ষণ নেন। ফটো এজেন্সি নামে নিজের একটি ছবি বিক্রির প্রতিষ্ঠানও আছে তাঁর।

ছবির প্রেমে মুগ্ধ হয়ে সত্যি সত্যিই যদি ফটোগ্রাফি কি আমি শিখতে চাই। কিন্তু কোথায় শিখবো এই নিয়ে ভাবনার জায়গাটা অন্তত এবার শেষ হলো। আসুন শুরু করি শখের বা কর্মাশিয়াল ফটোগ্রাফি এখানে যান

প্রথম আলো অবলম্বনে

রানা সাত্তার


ফোকাস বাংলা নিউজ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন