ফুড ফিয়েস্তা কি ? ঘুরে আসুন “গুড লাক ষ্টেশনারী আয়োজিত ক্যাম্পেইন।”

লাইটিং যে শিল্পের প্রকাশে একটি বড় মাধ্যম, সেটি সম্ভবত প্রমান করেছে ‘চিটাগাং লাইটিং হাউজ’। লাইটিংয়ে রংয়ের সতর্ক ব্যবহারে শৈল্পিক উপস্থাপনার কারিগরি প্রয়োগ আই কন্টাক্টে চোখের সমস্যা করেনি।

95
food_fiesta_Good_luck_2017

ফুড ফিয়েস্তা কি ?

এক কথায় ফুড ফিয়েস্তা খাবার প্রেমী বা যারা রেষ্টুরেন্টে খেতে পছন্দ করেন তাদের জন্য একটি ক্যাম্পেইন। ক্যাম্পেইন উপলক্ষ্যে দেশের নামী-দামী খাবারের রেষ্টুরেন্টগুলো তাদের পসরা নিয়ে হাজির থাকবে একটি ছাতার নিচে। ফুড প্রেমীদের জন্য থাকবে ডিসকাউন্ট।বিনোদনের আয়োজন থাকবে। ব্যস, আপাতত এটুকুই। চলুন ঘুরে আসি গুড লাক ষ্টেশনারী নিবেদিত ফুড ফিয়েস্তা ২০১৭।

ব্যস্ত নগরী চট্টগ্রামের কাজির দেউরী হয়ে লাভ লেইন। স্মরনিকা কমিউনিটি সেন্টার পার হইনি এখনো। রিক্সায় চোখে পড়ল কিছু ফেষ্টুন। GOOD LUCK, FOOD FIESTA। ত্রি-কোনাকৃত্রির ব্যানার/ফেষ্টুনে আরো নাম হয়তো ছিলো কিন্তু রিক্সার গতিতে বুঝতে সমস্যা হচ্ছিল। কৌতুহল নিভৃত করতে নেমে পড়লাম। মেলার গেইটে টিকেট কাউন্টার। মুল্য ৩০ টাকা।একটু ইতস্তত হয়ে ব্যান্ডের শব্দে আগ্রহী হলাম। টিকিট কেটে ঢুকেই পড়লাম।না, মুল্য বিফলে যায়নি।স্মরনিকা কমিউনিটি সেন্টারের ছোট্ট পরিসরে সুন্দর,পরিচ্ছন্ন,গোছানো ফুড ফেষ্টিভ্যাল, ব্যান্ডের মাস্তি, ডিজিটাল আড্ডা।আয়োজনে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান ‘সার্কেল’।স্পন্সরে বাংলাদেশের স্বনামধন্য কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান প্রান গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ‘গুডলাক ষ্টেশনারী’।কো-স্পন্সর প্রতিষ্ঠান আহমেদ ফুড। মিডিয়া পার্টনার ‘সময়’ টিভি। ফ্রী ওয়াইফাই সার্ভিস দেয় ভেলোসিটি।

ফুড ফিয়েস্তা ঘুরে পাবেন চট্টগ্রামের স্বনামধন্য সব খাবারের প্রতিষ্ঠানগুলো। অংশগ্রহন করেছে ‘দিল্লী ডাবর বিডি,তাকদীর, খানাঘাট, মিট লাভারস, হাঙ্গার গেইমস,কোকোলোকো, সোবি রোলস,এ্যাপিটিটো, জুস বক্স-চিটাগং, হট সিলি, স্পাইসি জোন প্যারিসো বিসট্রো, মাসালা টুইষ্ট, দি সিগনেচার, মজলিস,  লেমন গ্রাস রেষ্টুরেন্ট। এদিকটাকে বলা হচ্ছিল ক্যাটাগরি ‘এ’ ষ্টল।

কমিউনিটি সেন্টারের ভিতরের অংশে বসেছে কিছু ষ্টল। মিলানো, ক্যাফে ৮৮, আহমেদ ফুড, প্রান আলএফএল ও ঐতিহ্যবাহী হলদি এরাবিয়ান হাউজসহ বেশ ক’টি রেষ্টুরেন্ট। একটি কসমেটিকসের ষ্টল দৃষ্টিকটু লেগেছে। হলদি এরাবিয়ান হাউজের ম্যানেজার মিজানুর রহমান বলেন,‘বিক্রি এখানে মুখ্য নয় ।আমাদের নিয়মিত সম্মানিত কাষ্টমার যারা, ঘুরে ফিরে তারাই এখানে আসছেন। নাগরিক জীবনের ব্যস্ততার কারনে শহরের সবগুলো রেষ্টুরেন্টের খাবারের আইটেম, স্বাদ ও গুনাগুন সম্পর্কে জানা প্রায় অসম্ভব। এখানে একটি ছাতার নিচে এসে চট্টগ্রামের ইতিহ্যবাহী রেষ্টুরেন্ট সমূহের খাবার ও মান সম্পর্কে জানতে পারছেন, এটাই আমাদের সার্থকতা।’

“সুকন্ঠে ঘোষনা আসছিলো বিভিন্ন ষ্টলের খাবারের আইটেম ও ডিসকাউন্ট অফারগুলো নিয়ে। আগত দর্শনার্থীরাও জনপ্রিয় ব্যান্ড ‘আইটুআই’ এর পরিবেশনা, সুরের মূর্ছনায় হারিয়ে নেচে গেয়ে ক্লান্ত হয়ে গুমড়ি খেয়ে ভিড় করছিলো খাবারের ষ্টলগুলোতে।”

ফুড ফিয়েস্তা ফেষ্টিভালে ফটোগ্রাফি পার্টনার ‘ফেলিওটিলা’। দর্শনার্থীদের অনেকেই ফটোগ্রাফি বিষয়ে খোজ-খবর নিচ্ছেন, প্রতিষ্ঠানের প্রধান মিনহাজুল কবিরের কাছ থেকে। কেউবা পছন্দের ছবিটি তুলে নিচ্ছিলেন। লাইটিং যে শিল্পের প্রকাশে একটি বড় মাধ্যম, সেটি সম্ভবত প্রমান করেছে ‘চিটাগাং লাইটিং হাউজ’। লাইটিংয়ে রংয়ের সতর্ক ব্যবহারে শৈল্পিক উপস্থাপনার কারিগরি প্রয়োগ আই কন্টাক্টে চোখের সমস্যা করেনি।

গেলো বছর কোকোলা আয়োজন করে সপ্তাহব্যাপী ফুড ফিয়েস্তা। এ সময় ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও কুমিল্লার বিভিন্ন রেষ্টুরেন্টসমূহে সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত একেক দিনে রকমারি স্বাদ ও পছন্দের নানা খাবারের মেনুতে বিশেষ ডিসকাউন্টের ব্যবস্থা রাখা হয়। সবকিছু ছাপিয়ে চট্টগ্রামের এবারের আয়োজন ভিন্ন এক মাত্রায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ছুটির দিন ২১ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত চলবে ফুড ফিয়েস্তা। ঘুরে আসুন গুড লাক ষ্টেশনারী আয়োজিত ফুড ফিয়েস্তা ২০১৭।

ফোবানি/হামিদ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন