কর্ণফূলী নদীতে ভেসে উঠলো অজ্ঞাত যুবকের লাশ

125
karnafulli_nodite_lash

কর্ণফূলী নদীতে অজ্ঞাত যুবকের একটি লাশ উদ্বার করা হয়েছে। কর্ণফূলী নদীতে অঞ্জাত যুবকের লাশটি আজ শুক্রবার সকাল আনুমানিক ১০টায় রাঙ্গুনীয়া উপজেলার পূর্ব সরফভাটা গ্রামের একটি মাদ্রাসা সংলগ্ন শিলক খালে  ভেসে যাচ্ছিল ।

অজ্ঞাত যুবকের লাশটি চট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনীয়া উপজেলাধীন পূর্ব সরফভাটা মুয়াবিনুল ইসলাম মাদ্রাসা সংলগ্ন শিলক খাল এলাকা থেকে স্থানীয়রা উদ্বার করে পুলিশে খবর দেয়। এলাকাবাসী ও সেখানে উপস্থিত কেউ তাৎক্ষনিভাবে লাশটি চিন্হিত করতে পারেন নি।

কর্ণফূলী নদীতে ভেসে উঠা অজ্ঞাত যুবকের লাশটি নিয়ে এলাকাবাসির মধ্যে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। পরে এলাকাবাসি থানায় খবর দিলে রাঙ্গুনীয়া থানার উপ-পরিদর্শক শরীফ ঘটনাস্থলে এসে লাশটি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে লাশটি থানায় নিয়ে যান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাঙ্গুনীয়া থানার সংশ্লিষ্ট উপ-পরিদর্শক (এসআই) শরীফ জানান, “তদন্তের আগে ঠিক বলা যাচ্ছেনা লাশটি কার এবং কিভাবে মারা গিয়েছে। প্রয়োজনীয় তদন্ত শেষে ও লাশটির পোষ্ট মর্টেম রিপোর্ট পাওয়া গেলে বিস্তারিত জানা যাবে।” এটি হত্যা না আত্মহত্যা এ বিষয়েও বিস্তারিত কোন তথ্য তাৎক্ষনিকভাবে জানা যায় নি।

লাশটি কার এ বিষয়ে কারো কোন তথ্য জানা থাকলে রাঙ্গুনীয়া থানায় যোগাযোগের জন্য উপ-পরিদর্শক শরীফ এলাকাবাসিসহ সকলকে অনুরোধ জানান। কর্ণফূলী নদীতে ভেসে উঠা অজ্ঞাত যুবকের পরনে হলুদ টি-শার্ট রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে অন্য কোনো স্থানে হত্যা করে লাশটি কর্ণফূলী নদীতে ফেলে দেয়া হয়েছে। এ ধারনাটি সঠিক নাও হতে পারে। ময়না তদন্ত শেষে হত্যা না আত্মহত্যা এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে। এ মুহুর্তে লাশটি কার এটি চিন্হত করাই হলো প্রাথমিক কাজ। এই কাজটি যত দ্রুত সম্ভব করা যাবে, ততই কর্ণফূলী নদীতে ভেসে ওঠা অজ্ঞাত যুবকের লাশটি হত্যা না আত্মহত্যা – এই বিষয়ে তদন্তে এগিয়ে নেয়া অনেকটাই সহজ হবে বলে এলাকাবাসির অভিমত। সুতরাং প্রাথমিক কাজ হচ্ছে লাশটি কার- এটি খুজে বের করা। এ বিষয়ে সকলের এগিয়ে আসা প্রয়োজন।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত লাশটি রাংগুনিয়া থানার হেফাজতে রয়েছে। লাশটি ময়না তদন্তের জন্য চট্টগ্রাম সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হবে । লাশটির সুরতহাল রিপোর্ট শেষে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান ওসি। লাশটি চিন্হিত করতে তিনি যথাসম্ভব সকলের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেন।

তারেক সিদ্দিক


রাঙ্গুনীয়া কাপ্তাই থেকে

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন