উখিয়ায় এনজিওতে স্ত্রীর পরকিয়া, স্বামীর রহস্যজনক মৃত্যু

85
ngo-rohinga-camp

আজিজুল হক, উখিয়া(কক্সবাজার): রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এনজিওতে চাকরি করা নিয়ে স্ত্রীর পরকিয়ার ঘটনায় এক যুবক নিহত হয়েছে। এ নিয়ে পরস্পর বিরোধীবক্তব্য পাওয়া গেছে। ১২ মার্চ রাত ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, উখিয়া উপজেলার রত্নাপালং ইউনিয়নের ঝাউতলা এলাকার বজলুর হমানের পুত্র নুরুল হাসেম (২৮) ও পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী পশ্চিম পাড়া এলাকার বাসিন্দা শামশুল আলমের মেয়ে আকলিমার সাথে দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এক পযার্য়ে প্রেমের সম্পর্ককে বাস্তবতা দিতে তারা কিছুদিন পূর্বে কোটম্যারেজর মাধ্যমে বিয়ে করেছিল দুইজন। এরিমধ্যে আকলিমা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এনজিওতে চাকরি নেয়। শুরু থেকেই বিষয়টি স্বামীর পছন্দ হয়নি। কিছু দিন যেতে না যেতেই ক্যাম্পে পরকিয়ার জড়িয়ে পড়ে আকলিমা। এ নিয়ে প্রায় সময় স্বামী হাসেমের সাথে ঝগড়া হতো আকলিমার। স্বামী হাসেম চাইতো না স্ত্রী ক্যাম্পে চাকরি করুক। ঐদিন শাশুড় বাড়ীতে গিয়ে হাসেম আকলিমার উপর ছাড়াও হয়। এ নিয়ে বাড়াবাড়ির এক পর্যায়ে হাসেম বিষপান করে বলে মেয়েটির পারিবারিক সুত্র জানায়। তবে নুরুল হাসেমের পরিবার দাবি করছে তার ছেলেকে হত্যা করার পরে মুখে বিষ ঢেলে দেওয়া হয়েছে। তার মাথায় আঘাতের ছিহ্ন রয়েছে বলে নিহত যুবকের পিতা বজলুর রহমান অভিযোগ করেন। ময়না তদন্তের রিপোর্ট না পাওয়া পযর্ন্ত ব্যবস্তা নিতে পারছেনা পুলিশ। নিহতের ভাই ইমরান জানায়, তার ভাইকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে। এ ব্যাপারে উখিয়া থানা অফিসার ইনচার্জ আবুল খায়েরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সততা স্বীকার করে বলেন, বিষয়টি পুলিশ গভীর ভাবে তদন্ত করছেন। প্রকৃত রহস্য বের করার জন্য আবারও তদন্ত করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, যুবকটি বিষপানে করলে স্বজনেরা কক্সবাজার হাপতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তারেরা তাকে মৃত ঘোষণা করে। পরে লাশ ময়না তদন্তের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন