আন্তর্জাতিক নারী দিবস ২০১৭ উদযাপন।‘নারী-পুরুষ সমতায় উন্নয়নের যাত্রা/বদলে যাবে বিশ্ব,কর্মে নতুন মাত্রা’

117
international_woman_day_2017

আজ ৮ মার্চ, আন্তর্জাতিক নারী দিবস। বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন করা হয়।প্রিন্ট মিডিয়া,ইলেকট্রনিক মিডিয়া, অনলাইন নিউজ ও সোস্যাল মিডিয়া জুড়ে নারী দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে ছাপা হয় নানা ধরনের ছবি। সরকারি-বেসরকারি সংগঠনের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবি সংগঠন এ দিবসটি উপলক্ষ্যে প্রকাশ করে বিশেষ ক্রোড় পত্র।আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে অনলাইন নিউজ পেপার জাগোনিউজ২৪.কম এর আয়োজন ছিল সবচাইতে ব্যতিক্রম। পত্রিকাটির হোম পেজ জুড়ে আজ একাধিক ফিচার। এবারের নারী দিবসের প্রতিপাদ্য ‘নারী-পুরুষ সমতায় উন্নয়নের যাত্রা/ বদলে যাবে বিশ্ব, কর্মে নতুন মাত্রা’।

আন্তর্জাতিক নারী দিবস কি?

১৮৫৭ সালের ৮ মার্চ। মজুরি বৈষম্য, কর্মঘণ্টা নির্ধারণ এবং কর্মক্ষেত্রে বৈরী পরিবেশের প্রতিবাদ করেন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের সুতা কারখানার একদল শ্রমজীবী নারী। তাঁদের ওপরে দমন-পীড়ন চালায় মালিকপক্ষ। নানা ঘটনার পরে ১৯০৮ সালে জার্মান সমাজতান্ত্রিক নেত্রী ও রাজনীতিবিদ ক্লারা জেটকিনের নেতৃত্বে প্রথম নারী সম্মেলন করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭৫ সাল থেকে জাতিসংঘ দিনটি নারী দিবস হিসেবে পালন করছে। তখন থেকেই বিভিন্ন দেশে নারীর সংগ্রামের ইতিহাসকে স্মরণ করে দিবসটি পালন শুরু হয়।

আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে শুভেচ্ছাবানী

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া পৃথক বাণী দিয়েছেন। এতে তাঁরা বাংলাদেশসহ বিশ্বের সব নারীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তাঁর বাণীতে বলেন, ‘বর্তমান বিশ্বে নারীর অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে দিবসটির তাৎপর্য ও গুরুত্ব অপরিসীম। সর্বক্ষেত্রে নারী-পুরুষের অংশীদারত্ব নিশ্চিত করার মাধ্যমে দেশের সার্বিক চিত্র পরিবর্তন করা সম্ভব; যা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সহায়ক।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর বাণীতে বলেছেন, ‘বর্তমান সরকারের সময়োপযোগী পদক্ষেপে রাজনীতি, বিচার বিভাগ, প্রশাসন, শিক্ষা, চিকিৎসা, সশস্ত্র বাহিনী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সর্বক্ষেত্রে নারীরা যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখছেন।

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বাংলাদেশসহ বিশ্বের সব নারীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে তাঁদের অব্যাহত সুখ ও সমৃদ্ধি কামনা করেছেন।

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস তাঁর বাণীতে বলেন, নারীর অধিকার হচ্ছে মানবাধিকার; কিন্তু বর্তমান বিশ্বের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতে নারী ও কন্যাশিশুদের অধিকার হ্রাস পাচ্ছে, পাশাপাশি নিয়ন্ত্রণও করা হচ্ছে।

বিভিন্ন সংগঠনের আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন

international_woman's_day_ucep_bangladeshনারী দিবসের প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে নারী সংগঠন ও মানবাধিকার কর্মীরা। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে সকাল ১০টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকেন। এলজিইডি বিকাল ৩টায় আত্মনির্ভরশীল নারীদের এক পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। সামাজিক প্রতিরোধ কমিটির (৭০টি নারী, মানবাধিকার ও উন্নয়ন সংগঠনের প্ল্যাটফরম)  উদ্যোগে বিকাল ৩টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সমাবেশের আয়োজন করেছে। ‘নারীশ্রমিক কণ্ঠ’ দুপুর ১২টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে সর্বক্ষেত্রে নারীর এক-তৃতীয়াংশ অংশগ্রহণ এবং কর্মে নিযুক্ত সকল নারীর জন্য সমতাভিত্তিক মাতৃত্বকালীন সুবিধা নিশ্চিত কর’ এই দাবিতে মানববন্ধন ও র‌্যালীর আয়োজন করেছে। এতে সভাপতিত্ব করবেন ‘নারীশ্রমিক কণ্ঠে’র আহ্বায়ক শিরীন আখতার এমপি। বাংলাদেশ নারীমুক্তি কেন্দ্রের উদ্যোগে আগামীকাল সকাল ১১.৩০মি. জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মিছিল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। শাহাবাগে বিকেল ৫টায় আর্ন্তজাতিক নারী দিবস ও নারী সংহতির ১২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন বাতিল এবং পাড়া-মহল্লাসহ সর্বত্র ডে কেয়ার প্রতিষ্ঠার দাবিতে মশাল মিছিল করা হবে।

সোস্যাল মিডিয়া জুড়ে আন্তর্জাতিক নারী দিবস

international_woman_day_facebookজনপ্রিয় সোস্যাল মিডিয়া বিশেষ করে ফেসবুক, টুইটার,লিন্কডইনসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে প্রকাশ করেছে বিশেষ ছবি।উইকিপিডিয়া এ দিবসটি উপলক্ষ্যে ব্যতিক্রমধর্মী অনলাইনএডিটাথনের আয়োজন করে।আয়োজনটির মুল বিষয় হলো নতুনরা কিভাবে নিবন্ধ তৈরি করতে পারবেন এ সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য রয়েছে এতে। বিস্তারিত নিয়মাবলী দেয়া আছে এভাবে

নিয়মাবলী:

১.নারী সম্পর্কিত যেকোন নিবন্ধ নতুন তৈরি বা মানোন্নয়ন করা যাবে। আপনি এখান থেকে তা তৈরি করতে পারেন।

২. অসম্পূর্ণ বা ছোট নিবন্ধ তৈরী করবেন না। নতুন নিবন্ধ তৈরির ক্ষেত্রে কমপক্ষে তিন/চার প্যারা যুক্ত করুন।

৩. তথ্যসূত্রবিহীন নিবন্ধ তৈরী করবেন না। ইংরেজি উইকিপিডিয়ার তথ্যসূত্রগুলোই নিবন্ধ তৈরির সময় যুক্ত করে দিতে পারেন।

৪. যান্ত্রিক অনুবাদ বা গুগল অনুবাদ করবেন না।

৫. নিবন্ধ জমাদানের প্রয়োজন নেই। আমরা তালিকা থেকে গণনা করে নেব।

ঘুরে আসতে পারেন এখানে

ব্যাংক এশিয়ায় আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন

international_woman_day_facebookবুধবার রাজধানীর পুরানা পল্টনস্থ ব্যাংকের কর্পোরেট অফিসে কেক কেটে দিবসটির উদ্বোধন করেন ব্যাংকের চেয়ারম্যান আ. রউফ চৌধুরী। এ সময় অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ব্যাংক এশিয়ার চেয়ারম্যান আ. রউফ চৌধুরী বলেন,  নারীদের একটি সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ এবং বিশেষায়ীত সুযোগ সৃষ্টির জন্য ব্যাংক এশিয়া আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে। এ সময় কেক কেটে দিবসটি উদযাপন করা হয়।

 

চট্টগ্রামে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন

international_woman_day_chittagongআন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন করল চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। দিবসটি উপলক্ষে ০৮ মার্চ ২০১৭ খ্রি. বুধবার সকালে নগরীর প্রেসক্লাব চত্বর থেকে নগরভবন পর্যন্ত বর্ণাঢ্য এক র‌্যালী নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষীন করে নগর ভবনে এসে সমাপ্ত হয়। র‌্যালীতে নেতৃত্ব দেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন, শিশু ও নারী বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সদস্য এবং নারী নেতৃবৃন্দ। পরে চসিক কেবি আবদুচ ছত্তার মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন নারী ও শিশু বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এম আশরাফুল আলম। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর আঞ্জুমান আরা বেগম, জেসমিন পারভিন জেসি, আবিদা আজাদ,কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা মিসেস নাজিয়া শিরিন সহ অন্যরা। র‌্যালী ও সভায় প্যানেল মেয়র জোবাইরা নার্গিস খান, কাউন্সিলর সাইয়্যেদ গোলাম হায়দার মিন্টু, মো. গিয়াস উদ্দিন, নাজমুল হক ডিউক, হাসান মুরাদ বিপ্লব, শৈবাল দাশ সুমন, মোহাম্মদ আজম, মোরশেদ আকতার চৌধুরী, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোছা. ফারজানা পারভিন, মনোয়ারা বেগম মনি, ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবুল হোসেন, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মিসেস সনজিদা শরমিন,উপসচিব আশেক রসুল চৌধুরী টিপু, জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবদুর রহিম সহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, আন্তর্জাতিক নারী দিবস নারী জাতির জন্য একটি অর্থবহ গৌরবের দিন। বর্তমান বিশ্বে নারীর অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক নারী দিবস গুরুত্বপূর্ণ দিবস। মেয়র বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার নারী পুরুষের সমতা আনায়নে নারী শিক্ষার বিস্তার, নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা, নারীর ক্ষমতায়ন সহ সহিংসতা প্রতিরোধে নানামুখি আইন প্রণয়ন ও কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, দেশ গড়ার কাজে নারীরা পুরুষের সহযোদ্ধা। দেশের অর্থনীতি,রাজনীতি,সংস্কৃতি,বিচার,প্রশাসন, কুটনীতি, সশস্ত্র বাহিনী, আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী সহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নারীর সফল অংশগ্রহণ ও গৌরবোজ্জল ভ’মিকা প্রশংসনিয়। তিনি আশা করেন নারী-পুরুষের সম্মিলিত প্রয়াসে বাংলাদেশের ভিশন ২০২১ ও ভিশন ২০৪১ সফলভাবে পৌঁছতে পারবে। মেয়র বলেন, বাংলাদেশের অর্ধেক জনগোষ্টি নারীকে অন্ধকারে রেখে জাতির কল্যান সম্ভব নয় বিধায় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যোগ্যতার ভিত্তিতে নারীদের সর্বক্ষেত্রে সম অংশিদারিত্ব নিশ্চিত করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। মেয়র আরো বলেন, জাতিসংঘ সহ বিভিন্ন দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থা বাংলাদেশের নারী উন্নয়নের ভূয়ষী প্রসংশা করছে। প্রসঙ্গক্রমে মেয়র বলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন সরকারের ভিশন অনুযায়ী নানাক্ষেত্রে নারীদের প্রাধান্য দিয়ে যাচ্ছে। তিনি নারী শিক্ষার গুরুত্ব অনুধাবন করে সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

নোয়াখালীতে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন

নোয়াখালীতে র‌্যালী, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এক র‌্যালী বের করে। পরবর্তীতে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপাচায্য ড. এম অহিদুজ্জামান।

এ ছাড়া বিকাল ৩টায় নারীমুক্তি কেন্দ্র নোয়াখালী জেলা শাখার উদ্যোগে জেলা শহর মাইজদী টাউন হল মোড়ে সংগঠের কার্যালয়ে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে সংগঠনের জেলা সংগঠক স্বর্ণালী আচায্য সভাপতিত্ব করেন। বক্তব্য রাখেন, বাসদ (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটির সদস্য মানস নন্দী, নারী মুক্তি কেন্দ্রের সংগঠক মুনতাহার প্রীতি প্রমুখ। পরে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বিকাল ৪টায় নোয়াখালী প্রেসক্লাব চত্তরে নোয়াখালী জেলা নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক শিরিন আক্তারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, তন্দ্রা রাহা বড়–য়া, রাহা নব কুমার, মোল্লা হাবিবুর রসুল মামুন, অমল কৃষ্ণ অধিকারী, রৌশ আক্তার লাকী প্রমুখ। সভা শেষে সন্ধ্যায় নাটিকা, নারী জাগরের গান ও প্রদীপ প্রজ্জলনের আয়োজন করা হয়।

এছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে জেলা জুড়ে নারী দিবস পালিত হয়েছে। এসব অনুষ্ঠানে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনের বিশেষ বিধান বাতিল, নারী নির্যাতন বন্ধ, নারী শ্রমিকদের উপযুক্ত বেতন, কাজের উন্নত পরিবেশসহ সর্বক্ষেত্রে নারী-পুরুষের সমঅধিকার-সমমর্যাদা প্রতিষ্ঠার জন্য জোর দাবী জানানো হয়।

খুলনায় আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপিত

খুলনা জেলা প্রশাসন, মহিলা বিষয়ক দফতর, সরকারি-বেসরকারি দফতর ও বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের যৌথ আয়োজনে দিবসটি উপলক্ষে ৫-৮ মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে।

international_woman_day_noakhaliচার দিনব্যাপী কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- মানববন্ধন, ৠালি, আলোচনা সভা, কুইজ প্রতিযোগিতা, নারীদের প্রীতি ফুটবল প্রতিযোগিতা, বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ জয়িতাদের পুরস্কার প্রভৃতি।

দিবসটি উপলক্ষে বুধবার (৮ মার্চ) দুপুরে খুলনা সার্কিট হাউজে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান।

আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসক বলেন, একজন নারী পরিবারে দিনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কাজ করলেও তার কাজের মূল্যায়ন করা হয় না। এখন সময় এসেছে তাদের কাজের মূল্যায়ন করার।

তিনি আরও বলেন, একজন মা নিজের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে সব স্বার্থ ত্যাগ করেন তার সন্তানের সুখের জন্য। নারী-পুরুষ পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে যেকোনো কাজ করতে হবে। তবেই দেশ এগিয়ে যাবে। বিস্তারিত পড়ুন এখানে

আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপনে রহিম আফরোজ

international_woman's_day_rahim_afrozআন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপনের অংশ হিসাবে বাংলাদেশের শীর্ষ পর্যায়ের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান রহিম আফরোজ প্রত্যেক নারী কর্মীকে আলাদা আলাদা বার্তা পাঠায়। কর্মরত একজন নারী কর্মীকে তাঁর প্রতিষ্ঠানের এই ব্যতিক্রমি উদ্যোগকে নারীর প্রতি প্রতিষ্ঠানটির সার্বিক ও আন্তরিক দৃষ্টিভঙ্গির বহি:প্রকাশ বলে মন্তব্য করেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কর্মরত জনৈক  নারী কর্মী বলেন, একজন নারী হিসাবে তিনি নিজেকে মর্যাদাবান ও সম্মানিত বোধ করছেন । প্রত্যেকের ইমেইলে বার্তা পাঠানোর পাশাপাশি ডাকযোগে একটি সুন্দর কার্ডও প্রত্যেক নারী কর্মীকে পাঠানো হয়। ইমেইল বার্তায় প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে যা বলা হয় “

Dear Colleagues,

Assalamu Alaikum

The International Women’s Day is celebrating grandly today all across the world.  The main purpose of observing the day is to recognize the importance of the women in our lives and their role in building up family and relations. Everyone of us has special women in our lives: in the form of mother, sister, friend, wife, daughter, and more. It is a pleasure to have women in our life (let that be in any form) that is beautiful at heart. There are several women who have exceptional contributions to our society and nation.

As a colleague your determination and courage made our organizational success possible throughout the years.

On this moment of International Women’s Day, I extend warm wishes and greetings to all the women in Rahimafrooz and thank you all for your contribution over the years in developing our organization. Happy Women’s Day.

On behalf of your RA colleagues

ফোবানি/হামিদ/দ্বীপ আজাদ/আহমেদ মাসুদ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন